দিরাইয়ের আলোচিত ইউএনও’কে অবশেষে বদলি

দৈনিক জনকণ্ঠ
প্রকাশিত ডিসেম্বর ৩, ২০২০
দিরাইয়ের আলোচিত ইউএনও’কে অবশেষে বদলি

নিজস্ব প্রতিবেদক: দিরাইয়ের আলোচিত-সমালোচিত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সফি উল্লাহকে বদলি করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৩ ডিসেম্বর) বিকেলে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ শরীফুল ইসলাম।

তিনি বলেন, নিয়মিত বদলির অংশ হিসেবে দিরাইয়ের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে বদলি করা হয়েছে। এটি সপদে বদলি, কোনো পদোন্নতি নয়।

এদিকে দিরাইয়ের কিছু মানুষ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. সফি উল্লাহ পদোন্নতি পেয়ে সিনিয়র সহকারী সচিব হয়েছেন’ বলে পোস্ট দিচ্ছেন।

এ বিষয়টি নজরে এসেছে সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ শরীফুল ইসলামেরও। তবে তিনি জানিয়েছেন, এটি সমপদে নিয়মিত বদলি। পদোন্নতি বদলি নয়, উনি নিয়মিত পদায়নে সমপদে নৌপরিবহন মন্ত্রনালয়ে বদলি হয়েছেন।

ভৈরবের অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা (ফরেস্ট রেঞ্জার) এএইচএম আসাদ উল্লাহ ও গৃহিনী সেলিনা বেগমের সন্তান মো. সফি উল্লাহ ২০১৯ সালের ৭ নভেম্বর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন।

তবে এ উপজেলায় যোগ দিয়েই বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়ছেন এ কর্মকর্তা। সবশেষ শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) বিকেল সাড়ে ৪ টায় দিরাইয়ে রাফসান একাডেমি ফুটবল টুর্নামেন্টের একটি ম্যাচ চলাকালীন সময় প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়দের বেধকর পেটান ইউএনও শফি উল্লাহ। এসময় ভিডিও ধারণ করতে গেলে এক দর্শককেও পেটান তিনি।

এর আগে উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার আয়োজনে অনুষ্ঠিত এই টুর্নামেন্টের নাম নিজের ছেলে ‘রাফসান’র নাম অনুসারে নামকরণ করেন।

শুধু তাই নয়, এলাকার নবীন-প্রবীণ খোলোয়ারকে পাশ কাটিয়ে টুর্নামেন্টের উদ্বোধনও করান নিজের ছেলেকে দিয়েও। তখন বিষয়টি নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার সৃষ্টি হয়।

গত ৭ অক্টোবর একটি সংবাদের প্রয়োজনীয় তথ্য নেয়া শেষে কল কেটে দেয়ার সময় ‘স্যার’ না ডেকে ‘ভাই’ বলে সম্বোধন করায় স্থানীয় এক সাংবাদিকের উপর বেজায় খেপেছিলেন। এনিয়ে দেশজুড়ে আলোচনা সমালোচনা হয়েছিল।

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন